SEX CLASS

SEX QUESTION & ANSWER

What is the average penis size?

Penis size differs from person to person. The average length when erect is 10-18cm (4-7in) although there maybe some variation between different races and nationalities.

My penis is curved. Is that normal?

It is quite normal for a man's penis to curve or lean slightly to the right or the left when erect. Many men's penises will curve upwards too. However, if the penis suddenly develops a lump which causes it to bend abnormally, it should probably be checked by a doctor. It may be a sign of a condition called Peyronie's disease, which isn't life threatening, but may be uncomfortable and require treatment. You can find a diagram of the male sex organs on AVERT's website.

Does my vagina look the way it should?

Vaginas come in all different shapes and sizes, just as other parts of the body do, so there is no set way that a vagina should look.

A woman's sex organs are protected by two thick folds of skin or "lips" called the outer labia. Inside these is another set of lips known as the inner labia. These are thinner than the outer labia and are usually slightly different lengths. In some women the inner labia will stick out below the outer labia. In other women it will be the other way round. Women also have a clitoris, which is a small sensitive bump a little way above the urethra (urine hole) and the entrance to the vagina. You can find a basic diagram of the vaginal area on the AVERT website, but remember, this is just an anatomical drawing - you shouldn't expect your vagina to look exactly like this!

I'm gay and I really like someone but I'm not sure if they're gay too. Should I ask them out?

As with any potential relationship situation, you need to be prepared for the possibility of rejection if the person doesn't feel the same way as you. Sometimes getting to know a person as a friend first and trying to gauge their feelings and attitudes can help you to decide whether to take things any further. Perhaps mention a well-known gay celebrity and see what their reaction is.

Sometimes you may find that other people's ignorance and fears mean that you experience a really negative response. If this happens, it's really important not to take it personally. You are not to blame for the prejudices that other people have. If you are worried about it, talking things through with someone on a LGB hotline can be really useful. These advice lines are usually staffed by people who have been in similar situations, and it can be really helpful to talk to someone who knows exactly what you're going through.

Gay groups or gay youth groups can also be a great source of advice and support, as well as a fantastic means of meeting people - both friends and possible partners - without having to work out whether they are gay or not. Links to the telephone numbers for national gay and lesbian advice lines in the UK and USA can be found on our help and advice page.

I want to start using birth control - do I have to tell my parents?

In some countries such as the USA and UK, young people are entitled to advice and free contraceptives from their doctor in confidence. If you are unsure or live outside the USA or UK may need to check with your doctor or local clinic what their policy on confidentiality is.

Although it may be embarrassing (both for you and your parents), it can sometimes really help to talk things through with an adult. It's probably a good idea to gauge what their reaction might be first, but you may find they're more understanding and supportive than you expect.

Does sexual intercourse hurt the first time?

First time sex can be painful, as the penis entering the vagina can stretch or tear the hymen (the thin layer of skin that partially covers the entrance to the vagina). Not all girls have hymens (they may have been born without one or may have broken it through sport or inserting tampons earlier in life) but if they do and it tears, a girl may bleed a little. She may also find this bleeding continues the next few times she has sex, although once the tear has healed, she shouldn't have any further problems.

Being nervous and tense the first time can mean a girl does not produce enough natural lubrication to allow easy penetration. Nerves can also cause the muscles in a girl's vagina to tense up, making penetration difficult. Both of these problems can make sex more painful.

Is there a "safe time" to have sexual intercourse?

There is no safe time to have unprotected sex if you wish to avoid pregnancy and Sexually Transmitted Diseases. STDs can be transmitted whenever an infected person has sex with an uninfected person, and pregnancy is always a possibility, even during a girl's period. Although women are generally only fertile for a few days every month (usually around the middle of the menstrual cycle), most women have no definite way of knowing when this is. Sperm can also survive inside the body for several days, meaning a woman can potentially become pregnant over quite a long period of time. If she has irregular periods, "safe" days can be particularly difficult to predict. Some couples do use the so called 'rhythm' method as a form of contraception, but the success rate is not high, and it also offers no protection from STDs.

Can a girl still get pregnant if a boy pulls out before he ejaculates?

If a boy pulls his penis out before he ejaculates, the girl can still become pregnant. Sperm can be present in pre-come (the lubricating fluid that leaks from the penis before and during sex) and just a small amount in or around the vagina can be enough to make a woman pregnant.

I think I might be pregnant! What can I do?

If you think you or your partner might be pregnant you will probably be anxious about what to do. You might be worried about how people in your family will react. They might be angry at first, or find it hard to believe, but they might be able to help you consider what to do. Some people decide to have a baby if they are pregnant and others decide to have an abortion.

Your Ad Here

Why is AIDS education for young people important?

AIDS education for young people plays a vital role in global efforts to end the AIDS epidemic. Despite the fact that HIV transmission can be prevented, each year millions of people become infected with the virus; in 2008 alone, there were 2.7 million new HIV infections. Almost 1-in-6 of these new infections were among people under 15 years old.1

“In 2008 alone, there were 2.7 million new HIV infections. Almost 1-in-6 of these new infections were among people under 15 years old.”

Providing young people with basic AIDS education enables them to protect themselves from becoming infected. Young people are often particularly vulnerable to sexually transmitted HIV, and to HIV infection as a result of drug-use. Acquiring knowledge and skills encourages young people to avoid or reduce behaviours that carry a risk of HIV infection.2 3 4 Even for young people who are not yet engaging in risky behaviours, AIDS education is important for ensuring that they are prepared for situations that will put them at risk as they grow older.5

AIDS education also helps to reduce stigma and discrimination, by dispelling false information that can lead to fear and blame. This is crucial for prevention, as stigma often makes people reluctant to be tested for HIV. Somebody who is not aware of their HIV infection is more likely to pass the virus on to others. AIDS education can help to prevent this, halting stigma and discrimination before they have an opportunity to grow.6

Pregnancy Q&A

The following is a list of some common questions that we have been asked by teenagers. Please read through the list of questions to see if any are similar to your own.

1. Can I get pregnant the first time I have sex?
You can get pregnant any time you have sex – the first time, the fifth time, or the tenth time. It doesn’t matter how many times you have sex, it is possible to get pregnant.

2. I haven’t started having periods yet. Can I have sex without worrying about getting pregnant?
Generally, women ovulate 10-14 days before they start their period – this is the most fertile time during the month. Bcause you could begin having your period at any time, it would be nearly impossible to predict when you ovulate for the first time, which means if you have sex during that time, you could get pregnant.

3. My friend says she only has sex during her period so she can’t get pregnant. Does that work?
You can get pregnant at any time of the month because you can ovulate at any time during your monthly cycle. Generally, women ovulate 10-14 days before the start of their period, but stress, illness, or other factors could cause a woman to ovulate at a different time during the month.

4. My boyfriend told me that if he pulls out before he ejaculates, I can’t get pregnant. Is that true?
Some sperm are released during pre-ejaculation, which occurs before ejaculation and cannot be controlled, or usually even felt. The sperm from pre-ejaculation can fertilize an egg in the same way sperm from ejaculation can.

5. Can you become pregnant if pre-ejaculate comes in contact with the vulva? What is the possibility?
You can get pregnant in this situation. During sexual intercourse, almost all penises pre-ejaculate (leak fluid) before ejaculation. The pre-ejaculate is very concentrated with sperm and nutrients and can easily travel up the vagina and fertilize an egg after it comes in contact with the vulva (genital organs on the outside of a woman’s body). The chances of pregnancy are somewhat less than completely unprotected sex; however, it still is a possibility.

6. If my boyfriend and I take a bath together and he ejaculates in the water, can I become pregnant?
There is a very small chance you could get pregnant if your boyfriend ejaculates in the water next to you. If you are having intercourse or close touching even with penetration in the water there is a possibility of pregnancy.

7. What is the percentage of teenage mothers who drop out of school?
70% of teen mothers drop out of high school. 40,000 students drop out each year because of pregnancy.

8. What if you are still a virgin, but semen comes in contact with the vulva?
You can still get pregnant even if you have not had actual intercourse (penetration), if semen comes into contact with the vulva or surrounding areas.

9. I heard that you can have your period and still be pregnant. If that’s true, how many months can you have your period and be pregnant?
You can have what appears to be your period and still be pregnant. Some women have lighter than usual “periods” during the first few months of pregnancy, but they generally stop having them after the first 3-4 months. A normal period is a signal that your body is not pregnant.

10. I pulled out of my girlfriend before I ejaculated and we are scared that she is pregnant…can you tell me how we can find out if she is and what we can we do to stop the pregnancy if she is?
There is a chance she could be pregnant, since the pre-ejaculate fluid contains some sperm. If she is not already on birth control, she should strongly consider it. If she would like “emergency contraception,” there are combinations of birth control pills that will cause her to get a period. She can ask a provider at Planned Parenthood or another local family planning clinic.

11. If you have oral sex can you contract an STD?
Yes, many STDs can be passed through oral sex, especially gonorrhea and herpes. Chlamydia, syphilis, and genital warts can also be spread in this way. Remember, blisters or discharge does not have to be present to be able to contract an infection.

12. How many days before or after your period can you have sex with a less likely chance to get pregnant?
Typically, females ovulate 10-14 days before they start their periods. This is the most fertile time of the month. However, this is difficult to track as menstrual cycles tend to not be regular, and sperm can live in a woman’s body for 72 hours after ejaculation.

13. My boyfriend and I were kissing, with our clothes on, and I noticed a wet spot on my pants from where he ejaculated. Can sperm travel through his clothes and my clothes? Can I be pregnant?
Sperm is small, but it cannot travel through clothing such as jeans. It is possible for sperm to travel through cotton underwear, however.

14. I am now on birth control pills. My boyfriend and I had sex one day without protection and he pulled when he ejaculated. My period has come but it is lighter than my other periods. Could I be pregnant?
It is possible, though unlikely. Your period can change when you go on the pill, so that may account for the “lightness” of your last period. Remember your pill must be taken at the same time, everyday to be effective. You may want to consider using condoms as well. The Pill does not protect you from STDs, including HIV/AIDS.

Homosexuality Issues

Homosexual people most often do not know that they are homosexuals right away. Many times, as a person enters their teen years and hormonal changes are occurring, a teen may struggle with the many overpowering sexual feelings they are having. It is at this time that some teens may wonder if they are gay or lesbian. Sometimes, if a teen just has a fleeting sexual thought of someone of the same sex, they will jump to the conclusion that this means they must be homosexual. This is not the case. Having some random thoughts does not make a person homosexual. There are many adults who are straight and will have random thoughts their whole lives. If a person does think that they are homosexual, they should not feel guilty or that they are ‘bad’ in any way. Many people agree with the theory that a person does not choose to be homosexual, they are simply born with this trait. Likewise, it is wise to never treat homosexuals with prejudice. They are just people who are struggling with life’s issues just like everyone else.

Masturbation

Masturbation (or 'wanking') is normal, healthy and a good way to start exploring your body. It means touching yourself for sexual pleasure. For boys, that means rubbing the penis, and girls, rubbing the area around the clitoris (the girl's sexual hotspot). Masturbation means experimenting to find out what feels good for you, and often it can make you have an orgasm (or ‘cum’). Masturbation won't affect your sex life in the future and you won't go blind!

Kissing & touching

Most people start their sexual relationship with kissing and touching. This may not happen at once, and usually takes place over time - sometimes days, often weeks and maybe even months. Also, you don't have to move to the 'next base' if you don't want to - only do what feels comfortable and right for you. Maybe you'll start with kissing, and kissing with tongues and after a while move on to touching and fondling areas such as the breasts and the genital region.

Many couples play with each others sex organs for pleasure. This is known as 'heavy petting'. If you both do it at the same time, it is known as 'mutual masturbation'. It can be a very intimate experience, particularly if you don't feel ready for full sexual intercourse.

Oral sex

Gradually as you feel closer, you might experiment with oral sex (though some people choose not to do this and others choose only to go this far). This, along with kissing and touching is known as foreplay and again, doesn't automatically lead to full sex. If you are having oral sex, just like full sex, you need to make sure you are protected against STIs.

With any foreplay you'll experience what's known as arousal. If you are a guy this is easy to see, because you will get an erection. However, in a girl's body arousal is not so obvious. Signs to look for are a slight swell in the breasts; the clitoris (this is a small pea shaped bit above where your urine comes out and is the most sensitive and sexy female spot) very slightly protruding; and a wet, slippery feeling in the genitals.

Going all the way

Going all the way has various meanings and definitions and can be expressed in a number of ways.

Sexual intercourse can mean penetration of either a female or a male and isn’t necessarily defined as a penis entering a vagina. Sex can occur between males and females, males and males, and females and females….or any number of these make ups!.

If you decide that you want to explore sex further then there are a number of things to consider. If you are having penetrative sex then you should make sure that you or your partner is sufficiently lubricated. This may happen naturally if a female is turned on, however if you feel you need a little extra lubrication, then try using KY jelly which you can buy from any chemist.

Before penetration occurs always remember to use sufficient precautions to avoid STIs and unplanned pregnancies - a condom and the pill is your best bet. If you are considering having anal sex then the use of a thicker condom (instead of an ultra thin one) and plenty of lubricant is advised.

Once you have penetrated (or have been penetrated) then you and your partner usually start to move together until either of you (or both of you) climaxes (or has an orgasm).

Remember though – always practice safer sex and use a condom to avoid STIs and unplanned pregnancy. And the most important thing....make sure you only do what feels comfortable and right for you.

Myths and Facts on Anal Sex

At one time every state in America had a law against sodomy. According to the Associated Press as recently as 1960 every state still had an anti-sodomy law, though several states didn’t actively uphold them. They were just old laws that still happened to -be on the books.

Alabama, Florida, Idaho, Louisiana, Mississippi, North Carolina, South Carolina, Utah and Virginia still prohibit sodomy today. Yes that’s right, it’s illegal to have anal sex with your spouse in your own home. Kansas, Missouri, Oklahoma and Texas prohibit sodomy between same sex partners only. And in 1968 Georgia became the first Southern state to retain sodomy as a felony and made it applicable to lesbians. In 1986 the Georgia sodomy law prompted the United States Supreme Court decision that homosexual sodomy is not a fundamental right.

Those are the legal facts. But there are beliefs about anal sex out there too, myths if you will. One myth easy to bust is that anal sex is only enjoyed by homosexuals. That is absolutely not true. Many heterosexuals enjoy anal sex. In some cultures where virginity is still prized, women engage in anal sex in their young adult years before marriage, so they can still have some fun and yet be a “virgin” in the technical sense on their wedding night. The younger generation, in many cultures, has recently explored oral and anal sex so they don’t have to worry about unwanted pregnancy.

Some important information to know is that the anus does contain its own natural bacteria- so nothing that goes into it should go into any other part of the body without first being thoroughly washed. The anus isn’t actually “dirty” per se, yet another myth we can bust. It can be cleaned just like the rest of the body. But remember, once something is inserted into the anus, that something may contain the same bacteria naturally found in the anus and steps should be taken not to spread that bacteria anywhere else.

Another easy myth to bust is that anal sex is painful and causes hemorrhoids, fissures, tears or even incontinence. If anal sex is causing pain, it’s not being done right, according to Dr. Hilda Hutcherson, author of “What Your Mother Never Told You About Sex.” She also states that anal sex does not cause hemorrhoids, fissures, tears, or incontinence. She’s referring of course to consensual anal sex. Damage can be done to any orifice in the crime of rape.

Category 'Male Sexual Health'

Male sexual health is an important aspect of the overall health of a male. It is wise to have regular doctor checkups to ensure that a male’s entire body is in good health. Some teens will have questions about their sexual health, as hormonal changes can cause many changes regarding a male’s sexual organs. When a male teen is going through puberty some changes will occur and should not cause any fear. A male teen may find that they may awaken to a wet bed. This is normal; as a male’s sexual organ may have secretions during the night. In addition, it is quite normal for a male’s sexual organ to become erect upon waking up. This is a natural occurrence and it usually goes away after a few minutes. It actually has nothing to do with sexual thoughts. If a male is sexually active and notices any changes such as colored secretions throughout the day, itching, rashes or toner symptoms, a doctor’s visit is needed. Some issues can be easily treated with medicines. In addition, it is vital to know if a sexually transmitted disease has been contracted. A teen should not feel embarrassed to see a doctor, as doctors see many patients, every day, and are there to help.

What To Do If You Have Been Raped, and Prevention Tips

Rape is the usual word for the act of one person forcing another to have sex. Rape is one of the most horrible things to happen to a person. It is not only painful and traumatic, but it is hard to forget. Men and women can be raped. Men and women can be rapists, although it’s mostly men. Women rapists tend to stick objects painfully into the genitals and anus of their mostly female victims. If you remember nothing else of this article, please remember this – rape is not the victim’s fault. It’s the fault of the rapist only.

Many rape victims have painfully discovered their rapist was not a stranger, but someone they thought they knew, such as a husband, boyfriend, teacher or even a family member. They have different sets of problems and recovery needs than those who have raped by strangers. This article will concentrate on those who’ve been raped by strangers.

Preventing rape is very difficult, because of forces you can’t control. It’s akin to trying to find a place on Earth that will never have an earthquake. Any place on Earth can have an earthquake, but some places more than others. You must use common sense when you go out on a date or go to a new place. Try not to drink any alcohol or take drugs, which can slow down your reactions or make you act provocatively to others. Keep in well-lit, well populated areas. Walk confidently, even when lost, so you put off the appearance that you know exactly what you are doing. Keep a cell phone on you for emergencies. Before you go out, have some sort of calling check in arrangement with a family member or trusted friend. For example, if they haven’t had a call from you by 11pm, they know you are in trouble and need to call the police.

Men’s sexual problems

Men, in general, talk about their sexual conquests but not their sexual concerns. They tend to keep up the strong male image, including the impression that they are fantastic in bed and that they have no problems (except they “can’t get enough”). Yet, males usually feel responsible for sex–for approaching the woman, arranging the place, skillfully handling the foreplay, and producing both orgasms. Moreover, too many macho males think sex is all that really matters in a relationship; sharing feelings and problems, being tender and caring, doing things together that she likes to do, getting to know each other deeply, etc. are seen too often as silly women’s stuff. These men just don’t get it: good loving is not in the penis, it is in the heart and the mind. If sex were just coming to a climax, then we’d just masturbate. Sex is a mental-interpersonal process, not just a brief physical act. With males having all these responsibilities, misconceptions, and sexist attitudes, the truth is men have a lot of sexual problems.

The males who have a hostile, chauvinistic attitude towards women are responsible for much of the rape, abuse, and harassment of children and adult women. About 2 million girls are sexually abused by a father, brother, or other relative every year, another 3 million by rapists and child molesters. By 16, 20% of all girls have become victims of incest. In addition, about 25% of all college women become victims of rape or attempted rape, 60% of the time it was on a date. These statistics reflect very serious sexual-hostility problems in men. Sexual abuse is discussed in chapter 7 because it is selfish aggression, not love.

With more women insisting on equality and becoming more sexually active and sophisticated, men are becoming more interested in being well informed. They are realizing their differences with women. Several books about male sexual anatomy, sexual functions, sexual techniques, sexual communication, sexual diseases, sexual problems, etc. have become popular (Purvis, 1992; Doyle, 1989; and especially Zilbergeld, 1992).

On confidential questionnaires, half of all males say they are not happy with their sex life (many complain about their wives). Most do not seek professional help, but in the privacy of a therapist’s office, the most common problems of males are “I can’t get it up” and, essentially the opposite, “I come too quickly.” Most males have had a few experiences with a weak or partial erection, especially when drinking, tired, rushed, lacking privacy, or with a new partner. Anxiety is a common factor here. When the male is unable to get an erection over 25% of the time, it is called “impotency.” Reportedly, most erection difficulties start with a physical problem, such as diabetes, drug and alcohol use, and high-blood-pressure medication. So, see an urologist. There are injections for impotency (Eid & Pearce, 1993) if it can’t be cured any other way. Psychological reactions to impotency add to the problem, of course. Most of the cases with erection problems can be helped by physical and psychological treatment combined.

An average, normal male has several erections every night, even at age 65 the penis is erect an hour and a half every night! If erections do not occur after being checked and treated for physical problems, then psychological treatment is needed. Most therapists treat an erection problem by (1) teaching the male to satisfy his partner without using his penis and (2) having the partner stimulate the penis repeatedly (without intercourse or ejaculation) until the male gains confidence it will work. The relationship may also need to be worked on. There is a self-help book for this problem (Williams, 1986). A variety of psychotherapies are effective about 2/3rds of the time, reflecting the role of psychological and interpersonal factors. But don’t overlook the physical causes; they are important.

Anxiety is when for the first time you can’t do it a second time; panic is when for the second time you can’t do it once.

Ejaculating quickly and intensely could certainly be considered a sign of potency, rather than inadequacy. But if either partner wants the female to climax during intercourse with stimulation only being provided by the penis, then quick ejaculations are a problem, called “premature ejaculation .” Almost all males occasionally ejaculate sooner than they’d like. Perhaps 20% of males consistently have difficulty controlling their ejaculation, but only 20% or less of that group seek help with the problem. It can be changed.

Several things might be helpful with premature ejaculations: (1) use a condom to reduce the stimulation, (2) have one or two drinks before sex, (3) think about other things, (4) ejaculate twice (usually premature ejaculations are no problem the second time), (5) satisfy the partner in other ways and, then, both enjoy the male’s quick, powerful climax, (6) avoid deep thrusting by letting the tip of the penis massage clitoris and play at the opening of the vagina or by leaving the penis fully inserted and concentrate on rubbing the pubic areas together (whatever feels good to the female), (7) stop stimulating the penis before reaching “the point of no return” and relax a moment, and (8) use the squeeze technique. The latter method involves squeezing the penis (fingers on top and thumb on bottom) right behind the head or near the base. This is done just before reaching the “point of no return” (when ejaculation can’t be avoided). A hard squeeze reduces the urge to ejaculate. In this way the female partner can teach the male to keep an erection. Masters and Johnson claim a 96% success rate. Kaplan’s (1989) self-help book, How To Overcome Premature Ejaculation, is recommended.

There are other male problems, such as being unable to ejaculate in the vagina or taking a long time to do so. These are rare but treatable, usually by a sex therapist. There may be relationship problems. But, a desensitizing process might be tried first involving these steps: (1) masturbating alone thinking of your partner for a week or so, (2) masturbating in front of partner during the next week, (3) being masturbated by partner for another week or so, and (4) being aroused by partner to near the point of ejaculation and then inserting the penis in the vagina. After successfully ejaculating inside the female in this manner several times, the fears usually disappear. This procedure is successful in about 75% of the cases (Masters, Johnson & Kolodny, 1985).

Your Ad Here

FONT PROBLEM?

CLICK HERE TO GET YOUR BANGLA FONT. DOWNLOAD & COPY-PEST TO CONTROL PANEL-FONT FOLDER.

নিয়মিত সহবাসে হৃদরোগের সম্ভাবনা কমে

যৌন মিলনের ফলে পুরুষদের হৃদরোগের সম্ভাবনা কমে৷ সম্প্রতি একটি গবেষণাতে এই বিষয়টি প্রমানিত হয়েছে৷ যে সব পুরুষরা নিয়মিত ভাবে সহবাস করেন তাদের হৃদরোগ হওয়ার মাত্রা অর্ধেক শতাংশ কমে যায়৷ ম্যাসাচুটেসের নিউ ইংল্যান্ড ইনস্টিটিউটের বৈজ্ঞানিকরা এই বিষয়টি নিয়ে গবেষণা করেছেন৷ তারা 40 থেকে 70 বছরের পুরুষদের নিয়ে দীর্ঘ 16 বছর ধরে এই গবেষণা চালিয়েছেন৷ বৈজ্ঞানিকরা তাদের গবেষণাতে যে টা পেয়েছেন তা হল যে সব পুরুষরা নিয়মিত সহবাস করেছেন তারা অন্য পুরুষদের তুলনায় তারা বেশী সুস্থ ছিলেন৷ বৈজ্ঞানিকদের মতে সপ্তাহে দুই বার বা ি বার সহবাস করলে পুরুষদের হৃদরোগের সম্ভাবনা 45% কমে যায়৷ অপরদিকে যারা সপ্তাহে এক বার বা এর চেয়ে কম পরিমাণে সহবাস করেন তাদের হৃদরোগের সম্ভাবনা বেড়ে যায়৷

মহিলাদের সুস্থ জীবন দেয় সহবাস

যৌন মিলন শুধু শারীরিক চাহিদাই মেটায় না৷ তা মহিলাদের সুস্থ থাকতে সহায়তা করে৷ জীবনসঙ্গীর সঙ্গে সহবাসে তৃপ্তি লাভে নাকি মহিলারা নাকি সুস্থ জীবন লাভ করতে পারেন৷ তাদের মধ্যে পজিটিভ এনার্জী আসে এবং জীবনী শক্তি বাড়ে৷ সম্প্রতি একটি গবেষণায় সেটাই প্রমানিত হয়েছে৷ নাস ইউনির্ভাসিটিতে এই বিষয়টি নিয়ে গবেষণা করা হয়েছিল৷ গবেষকরা 265 জন মহিলাদের নিয়ে গবেষণা করেছিলেন৷ এদের প্রত্যেকেরই বয়স ছিল 26 থেকে 65 বছরের মধ্যে৷ এক্ষেত্রে গবেষকরা প্রমাণ করেছেন জীবনসঙ্গীর সঙ্গে সহবাসে মহিলারা যদি তৃপ্তি লাভ করেন তাহলে শারীরিভাবে তারা স্থ থাকতে পারবেন৷ শারীরিক কোন সমস্যা থাকবে না৷ অনেক সময় মাসে দু বার সহবাসের মধ্যে দিয়েই আপনি সেই তৃপ্তিটা লাভ করতে পারেন৷ আবার অনেক সময় খুব বেশী মাত্রায় সহবাস করলেও সেই সুখটা পাওয়া যায় না৷

SEX QUESTION AND ANSWER

পুরুষত্বহীনতা এবং যৌনতা

কোন পুরুষের প্রাথমিক পুরুষত্বহীনতা হবে তা আগে থেকে বলা যায় না। আবার কেউ অন্যকে শেখাতে পারে না লিঙ্গ উত্থানের বিষয়টি। লিঙ্গের উত্থান একটি প্রাকৃতিক অবস্থা। রেসপিরেটোরি, সারকুলেটরী এবং স্নায়ুবিক কারণে লিঙ্গ উত্থিত হয়। কিন্তু আসল কারণটি হলো প্রাকৃতিক। তবে অনেক ক্ষেত্রে যৌন মনোদৈহিক সামাজিক কারণে অনেকের পুরুষত্বহীনতা হতে পারে। যে কারণগুলো পুরুষত্বহীনতার জন্য স্বাভাবিকভাবে দায়ী সেগুলো হলো

কঠিন ধর্মীয় বিশ্বাস।

যৌনতার জন্য প্রচুর শক্তি না থাকা।

মাতৃত্বের কঠিন চাপ।

সমকামিতা পছন্দ করা।

নারীদেরকে ঘৃণা করা।

পতিতার সাথে সঙ্গমে ব্যর্থ হওয়ার পরে মনে পাপ বোধের সৃষ্টি।

পুরুষত্বহীনতার চিকিৎসা-

প্রায়শই পুরুষত্বহীনতার চিকিৎসা কঠিন হয়ে দাঁড়ায় এবং রোগের কারণ ধরতে না পারলে চিকিৎসা ব্যবস্থা প্রলম্বিত হতে পারে। যৌন বিশেষজ্ঞ মাস্টার এবং জনসনের মতে যৌন সঙ্গিনী বদলের ফলেও অনেক সময় রোগের সমস্যা সমাধান করা যেতে পারে। নারীর উচিত পুরুষকে ব্যাপারে সহায্য করা। স্ত্রীর উচিত স্বামীকে সাহায্য করা। নৈতিক, সমাজিক,আর্থ-সমাজিক প্রোপটে পুরুষের পুরুষত্বহীনতার চিকিৎসায় বর্তমানে যে বিষয়গুলো গ্রহন করা হয় সে গুলো হলো

যৌনত পরিপূর্ণ শিক্ষাদান।

সাইকোথেরাপী।
রোগীকে হস্তমৈথুনের দ্বারা তার লিঙ্গের দৃঢ়তা বাড়ানো।

দুশ্চিন্তাগ্রস্ত রোগীকে এ্যাংজিওলিটিঙ দেয়া।

নিচু মাত্রার ৫০ গ্রাম টেসটোস্টেরন ইনফেকশন সপ্তাহে তিনবার দেয়া।

যদি রোগীর কেবলমাত্র উত্থানজনিত সমস্যা হয় তবে রোগীকে নগ্ন নারীর সমনে উপস্থিত করা।

ক্ষেত্রে পতিতাদের সাহায্য নেয়া যেতে পারে।

পেপাভেরিন ইনকেজশন লিঙ্গের দৃঢ়তা বাড়াতে পারে।

রোগীর জন্য সামাজিকতার প্রয়োজন।

যৌন উদ্দীপক গ্রন্থ পড়া উচিত।

চূড়ান্ত মাত্রার পুরুষত্বহীনতা-

অনেক পুরুষের পুরুষত্বহীনতা সাময়িক। দেখা যায় যে খুব বেশি ত্রায় উদ্বিগ্ন থাকলে বা কোনো কিছু নিয়ে দুশ্চিন্তাগ্রস্ত থাকলে যৌনমিলনের সময় পুরুষ তার যৌন উত্তেজনা হারাতে পারে। আবার খুব বেশি মাত্রায় এলকোহল সেবনের ফলেও পুরুষের লিঙ্গের দৃঢ়তা নষ্ট হয়ে যায়। সাইকোজেনিক অথবা অর্গানিক নানা কারণে পুরুষের পুরুষত্বহীনতার সৃষ্টি হতে পারে। মনোদৈহিক যে যে কারণে পুরুষত্বহীনতার সৃষ্টি হতে পারে

. দাম্পত্য সমস্যা।

. ধর্মীয় কুসংস্কার।

. কঠিনভাবে পিতা বা মাতার অনুশাসনের নিয়ন্ত্রণে থাকা।

. পূর্বের যৌন অমতার জন্য পাপবোধ।

. অকাল বীর্যপাত।

. যৌনতার ব্যাপারে অনাগ্রহ।

. যৌনমিলনে সফলতা আসবে কিনা এই নিয়ে ভয় এবং দুশ্চিন্তা।

অর্গানিক কারণে সৃষ্ট পুরুষত্বহীনতা-

. এনাটোমিকাল বড় হাইড্রোসেল টঙিকুলার ফাইব্রোসিস।

. কার্ডিওরেসপেরেটোরী মায়োকার্ডিয়াল ইনফ্রাকশন ইনজিনা ফাইমোসিস।

. জেনিটো ইউরিনারী প্রিয়াপিজম প্রোসটাটিটিস ইউরেথ্রিটিস প্রোসটাটেকটমী।

. এন্ড্রোক্রাইনাল, ডায়াবেটিস থাইরোটঙিকোসিস স্থুলতা ইনফা্যান্টালিজম ক্যাসট্রেশন এক্রোমেগালি।

. নিউরোলজিক্যাল, মাল্টিপোল, সিরোসিস, অপুষ্টি, পারকিনসন্স অসুখ, টেমপোরাল লবের সমস্যা, স্পাইরাল কর্ডের আঘাত, .সি.টি।

. ইনফেকশন, টিউবারকিলোসিস, গনোরিয়া, মাম্পস।

. ড্রাগ নির্ভরতা, এলকোহল সেবন, স্নায়ু শিথিলকারী ওষুধ, এন্টিহাইপারটেনসিভ ওষুধ, সাইকোট্রপিকস ওষুধ, যেমন-ইমিপ্রামিন, ডিউরেটিঙ। যেমন-রেজারপাইন।

রোগ নির্ণয়-

যে কোনো ধরণের পুরুষত্বহীনতার চিকিৎসার জন্য তার রোগ নির্ণয়ের প্রয়োজন রয়েছে। ডাক্তারকে জানতে হয় পুরুষের ক্রমগত যৌন সমস্যা কেন সৃষ্টি হচ্ছে। অনেক ক্ষেত্রে দেখা যায় মনোদৈহিক কারণের চাপ শরীরের উপর এসে পড়ে এবং এই জন্য পুরুষ উত্থান সমস্যায় ভোগে। রোগ নির্ণয়ের জন্য ডাক্তারকে যে বিষয়গুলো জানতে হয়

. রোগীর পারিবারিক ডাক্তারী ইতিহাস,

. রোগীর ব্যক্তিগত ডাক্তারী ইতিহাস।

. রোগীর শারীরিক পরীক্ষা।

. রোগীর লিঙ্গ পরীক্ষা।

. ল্যাবটেষ্ট।

. মিনেন সোটা মালটিফেজিক পারসোনালিটি ইনভেনটোরি।

রোগীর পারিবারিক ডাক্তারী ইতিহাস এবং রোগীর ব্যক্তিগত ডাক্তারী ইতিহাস জানা এই জন্য জরুরী যে, এতে করে রোগ নির্ণয় করা সুবিধা হয় ডাক্তার বুঝতে পার পুরুষত্বহীনতার এই সমস্যাটির কারন শারীরিক নয় মানসিক। অনেক ক্ষেত্রে অতিরিক্ত এলকোহল সেবনজনিত কারণে পুরুষের পুরুষত্বহীনতা দেখা দেয় এবং অনেকের অকাল বীর্যপাতের সমস্যা দেখা দিতে পারে। রোগীর শারীরিক পরীক্ষা নিরীার মধ্যে প্রধান বিবেচ্য বিষয় থাকে তার রেসপিরেটোরী এবং কার্ডিওভাসকুলার ঠিকমত কাজ করছে কিনা তা ল্য করা। এছাড়া স্নায়ু এবং তলপেট ব্যবস্থা কতটুকু সুস্থ আছে এটিও ডাক্তারদেরকে জানতে হয়। লিঙ্গ পরীক্ষার সময় ডাক্তার যে বিষয়গুলো ল্য করেন।

প্রিপিউজ-ফাইমোসিসের জন্য।

মূত্রনালীর মুখ- স্টেনোসিসের জন্য।

অন্ডথলি-হাইড্রসেলের জন্য।

করপরা কেভারনোসা-যে কোনো প্রকার ফাইব্রেসিসের জন্য।

ল্যাবরেটরী টেষ্ট-

ল্যাবরেটরীতে ডাক্তার রোগীর বিভিন্ন শারীরিক বিষয় পরীক্ষা নিরীক্ষা করে থাকেন। এতে করে দ্রুত সমস্যা নির্ণয় করা সহজ হয়। ল্যাবরেটরীতে পুরুষত্বহীনতার জন্য যে সমস্ত টেষ্ট করানো হয় সেগুলো হলো

সি.বি.সি।
.এস.আর।
মূত্র পরীক্ষা।

লিভারের এনজাইম পরীক্ষা।

বীর্য পরীক্ষা।

থুথু পরীক্ষা।

এস এম ১২।

টেসটোসটেরন স্তন পরীক্ষা।

প্রেল্যাকটিন স্তন পরীক্ষা।

পুরুষত্বহীনতার চিকিৎসা-

পুরুষত্বহীনতার চিকিৎসার ব্যাপারে অধিকাংশ পরামর্শ এসেছে মাস্টার এবং জনসন কাছ থেকে। তারা তিনটি বিষয়ে প্রাথমিকভাবে গবেষণা করে থাকেন যে কোনো একজন পুরুষ পুরুষত্বহীনতার ভোগে। এই তিনটি কারণকে বিশ্লেষণ করে তারা এমন কিছু কৌশল এবং পদ্ধতির কথা বলেন যাতে করে পুরুষত্বহীনতা সমস্যা কাটানো যায়। তাদের গভেষণার বিষয় তিনটি হলো

. যৌনতার ব্যাপার পুরুষ এবং নারীর ভ্রান্ত ধারণা।

. পুরুষের পুরনো চিন্তা ভাবনা এবং উঁচু মাত্রার শারীরিক এবং মনোদৈহিক চাপ। বিশেষ করে স্বামী স্ত্রী মধ্যকার যৌনতার ব্যাপারে আলোচনা কম হওয়া। মনে রাখা উচিত স্বামী স্ত্রী মধ্যকার যৌন আলোচনা যৌন উদ্দীপনা বাড়াতে পারে।

. পুরুষত্বহীন পুরুষের মানসিক চাপ বেশি থাকে সেই কারণে স্ত্রীর বা যৌন সঙ্গিনীর উচিত তাকে আশ্বস্ত করা যে এটি কোনো রোগ নয়। মাস্টার এবং জনসনের পুরুষত্বহীনতার ব্যাপারে দেয়া পরামর্শগুলো হলো।

যৌন সঙ্গী এবং সঙ্গিনীর মধ্যে খোলামেলা যৌন আলোচনা করা উচিত। এটি পরস্পরের যৌনানুভূতিকে চাঙ্গা করতে পারে এবং পুরুষের লিঙ্গের দৃঢ়তা সৃষ্টি করে।
যৌনতার ব্যাপারে কোনো প্রকার ধারণা পোষণ করা উচিত নয়। এবং পুরুষ উভয়েরই উচিত যৌনতার ব্যাপের একজন অন্যজনকে সাহায্য করা। এর ফলে যৌন অনুভূতি এবং পুরুষের লিঙ্গের দৃঢ়তা তৈরী হতে পারে।

যদি নারী বা পুরুষের যে কোনো একজনের যৌনতা ব্যাপারে কোনো প্রকার সন্দেহ ভয় ভীতি বা দুশ্চিন্তা কাজ করে তাহলে সাথে সাথে তা ডাক্তারকে জানানো উচিত। অনেক নারী যৌনতার ক্ষেত্রে পরিচ্ছন্নতা খুব পছন্দ করে। হয়তো তার যৌন সঙ্গী বা স্বামী ওরাল সেক্স পছন্দ করছে অথচ নারী সেটি পছন্দ করছে না। এতে করে উভয়ের যৌন অনুভূতির মধ্যে একটা পার্থক্য তৈরী হতে পারে। ব্যাপারটি দিকে খেয়াল রাখা উচিত।

পরস্পরের সাথে গভীর স্পর্শের সম্পর্ক থাকা উচিত।

পুরুষদের যদি উত্তেজনা কম থাকে সে ক্ষেত্রে নারীর উচিত পুরুষকে উত্তেজিত করে তোলা। নারী বিভিন্ন ভাবে পুরুষকে উত্তেজিত করতুলতে পারে। বিশেষ করে নারী তার স্তন, স্তনবৃন্ত, কিটোরিস ইত্যাদি উত্তেজক শারীরিক অংশের স্পর্শ দ্বারা পুরুষকে উত্তেজিত করে তুলতে পারে।
পুরুষত্বহীনতা সমস্যা মোকাবেলায় নারীর ভূমিকা রয়েছে খুব বেশি। নারী পুরুষকে বিভিন্ন ভাবে উত্তেজিত করে আবার তাকে শিথিল করে তার লিঙ্গের দৃঢ়তা বাড়াতে পারে। স্ত্রী দিনে অন্তত তিন চার বার স্বামীর দৃঢ়তা বাড়াতে কাজটি করতে পারে।

লিঙ্গের উত্তেজনা দীর্ঘণ ধরে না রেখে পুরুষের উচিত একবার লিঙ্গ শিথিল করে আবার লিঙ্গের উত্তেজনা তৈরী করা। এতে করে পুরুষত্বহীনতার সমস্যা কিছুটা কমতে পারে।

সূত্রপ্রফেসর ডাঃ মোহাম্মদ ফিরোজ

উত্তেজনা জাগাবে ইলেকট্রনিক চিপ

এখন আর মুড তৈরি করে সহবাসের প্রয়োজন নেই৷ কারণ খুব শীঘ্রই বৈজ্ঞানিকরা এমন একটা ইলেকট্রনিক চিপ আবিষ্কার করতে চলেছেন যা আপনার শরীরে অনায়াসেই উত্তেজনা তৈরি করবে৷ তার ফলে যখনই আপনি আপনার সঙ্গীর সঙ্গে যখনই শারীরিক ভাবে মিলিত হতে চাইবেন তখনই অনায়াসেই আপনার শরীরে যৌন মিলনের উত্তেজনা তৈরি হবে৷ সঙ্গীর সঙ্গে যৌন মিলনের আনন্দ আপনি সহজেই উপভোগ করতে পারবেন৷ এই চিপটা মস্তিষ্কের সেই অংশে লাগানো হবে যা যৌন উত্তেজনা জাগায়৷ এই চিপটার মধ্যে দিয়ে মস্তিষ্কে হালকা বৈদ্যুতিক রে দেওয়া হবে৷ যা মস্তিষ্কের সেক্স নিয়ন্ত্রন কারী অরগ্যনকে সক্রিয় করবে৷ এই রে দেওয়ার পরেই ব্যক্তির মধ্যে যৌন মিলনের উত্তেজনা প্রকাশ পাবে৷ 2020 সালের মধ্যেই খুব সম্ভবত এই চিপটা বাজারে চলে আসবে৷

দৈহিক মিলনে উত্তেজনার চারটি ধারা

নারী এবং পুরুষ যখন দৈহিক মিলনে উপনিত হয়, তখন উভয়ের শরীরে দৈহিক উত্তেজনা চলে আসে নারী এবং পুরুষ উভয়ের ক্ষেত্রেই এই উত্তেজনার চারটি ধারা হলো-

উত্তেজনার ধারা।

যৌনমিলনের ধারা।

চরমপুলকের ধারা।

শিথিলতার ধারা।

উত্তেজনার স্তরে পুরুষ এবং নারী একে অন্যের স্পর্শে বা আদরে উত্তেজিত হতে পারে। উত্তেজনার ধারাটি সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ যৌন আনন পাবার ক্ষেত্রে। যদি কেউ যৌনমিলনের আগে পূর্ণাঙ্গ উত্তেজিত না হয় তবে যৌন চরমপুলক সে পুরোপুরি পায় না। এজন্য উত্তেজিত হবার দরকার আছে। নারীর সাধারণত পিরিয়ড চলাকালীন সময়ে যৌনমিলন পছন্দ করে। কেননা এই সময়ে শরীর অবসন্ন থাকে এবং নারীর স্তন যৌনকাতর হয়ে উঠতে পারে। স্বাভাবিক ভাবে যৌনমিলনের ক্ষেত্রে পুরুষ এবং নারী উভয়ের যৌন উত্তেজনার মাত্রা বাড়তে থাকলে এক সময় উভয়েই চূড়ান্ত মিলন আশা করে। নারীর নিতম্ব, স্তন, স্তনবৃন্ত এবং যোনি মিলনের আনন্দে উত্তেজিত হয়ে উঠে। এই পর্যায়ে পুরুষের লিঙ্গ দৃঢ় হয় এবং লিঙ্গ যৌনমিলনের জন্য উন্মুখ হয়ে উঠে। জেনে রাখা ভালো যে কোনো কোনো নারী যৌনমিলনের আগে উত্তেজনার স্তরেই তার যৌনি থেকে তরলের রণ হতে পারে। এটা নারী যে উত্তেজিত তার প্রমাণ এবং এটি যৌনিকে পিচ্ছিল করে তোলে, যাতে করে লিঙ্গ চালনা সহজ হয়। পুরুষের লিঙ্গের মাথাতেও এই সময় সাদাটে পানির মতো পদার্থ বের হতে দেখা যায়। থেকে বোঝা যায় যে পুরুষ যৌন উত্তেজনার চরমে উঠেছে এবং পর্যায়ে পুরুষও নারী চূড়ন্ত যৌনমিলনে স্তরে পুরুষের লিঙ্গ নারীর যোনির ভেতর চালনার ফলে নারীর যৌন আনন্দ ঘনিভূত হয়। এবং এই পর্যায়ে পুরুষের র্বীযপাত হবার সম্ভাবনা দেখা দেয়। পুরুষ মোটামুটি ভাবে নারীর যোনিতে অর্থা প্রবেশের পর থেকেই যৌন আনন্দ পায়। প্রথম প্রথম যৌনমিলনের সময় নারীর যৌনাঙ্গে ব্যথার সৃষ্টি হলেও পরে অবশ্য তা এমনিতেই কেটে যেতে পারে। যৌনমিলন যখন চলতে থাকে তখন উভয়েরই শারীরিক এবং মানসিক অবস্থা চূড়ান্ত উত্তেজিত পর্যায়ে পোঁছে যায়। এই সময়ে নারীর এবং পুরুষের শ্বাস-প্রশ্বাস দ্রুত এবং রক্ত চলাচলের গতি বেড়ে যায়। এরপর চরমপুলকের ধারায় পুরুষ এবং নারী যৌন আনন্দ পায়। পুরুষের মতো নারীর বীর্যপাত না হলেও তার যোনির ভেতরে তরলের রণ হয়। পুরুষের বীর্যপাত ঘটলে তার চরমপুলক এসে যায়। কোনো কোনো নারী একবার যৌনমিলনেই কয়েকবার যৌন আনন্দ লাভ করে। একে মাল্টিপোল অর্গাজম বলে। কিন্তু পুরুষের ক্ষেত্রে রকম ঘটতে দেখা যায় খুব কম। পুরুষের বীর্যপাত হলে তার লিঙ্গ শিথিল হয়ে পড়ে এবং নারীর যোনি ধীরে ধীরে শুষ্ক হয়ে উঠতে থাকে। এই পর্যায়ে শিথিল ধারায় আবির্ভাব ঘটে। অর্থা পুরুষ এবং নারী উভয়ের দেহই শিখিল হয়ে পড়ে। কেননা যৌনমিলনের সময় যে শারীরিক এবং মানসিক গতির সঞ্জার হয় তা ধীরে ধীরে কমে আসে এবং সেই সাথে হৃদপিন্ডের ক্রিয়া শ্বাস-প্রশ্বাসের গতি স্বাভাবিক হয়। চরমপুলকের পরে পুরুষ এবং নারীর দৈহিক শিখিলতা অবস্থা শারীরবৃত্তীয় স্বাভাবিক কারণ সংঘটিত হয়। পুরুষ এবং নারী শিথিল অবস্থার পরবর্তী সময়ে আবার যৌনমিলনের জন্য উত্তেজিত হয়ে উঠতে পারে নারীর ক্ষেত্রে যৌনমিলনের আনন্দ কোনো কোনো সময় খুব বেশি কাঙিত আবার কোনো কোনো সময় ততোটা কাঙিত হয় না। পুরুষের ক্ষেত্রে অবশ্য কোনো শারীরিক এবং মানসিক চাপ না থাকলে পুরুষের যৌন উত্তেজনা বৃদ্ধি পায়

যৌনমিলনে চরমপুলক

চরমপুলক হলো যৌনমিলনের মূল কথা চরমপুলকের মাধ্যেমে নারী এবং পুরুষের দেহ যৌনানন্দ লাভ করে। নারীর সাথে পুরুষের দৈহিক মিলনের চূড়ান্ত পর্যায়ে চরমপুলক ব্যাপাটি সংঘটিত হয়ে থাকে। চরমপুলকের আগে নারী এবং পুরুষ যৌনক্রিড়া এবং যৌনমিলনে অংশ নেয়। যৌনমিলনের একেবারে শেষ ধাপ হলো চরমপুলক। শারীরিক আনন্দের চরমপর্যায়ে উভয়ের শরীর শিথিল হয়ে আসে। এই সময় স্নায়ু চাপ একেবারে কমে যায়। চরমপুলক হলে পুরুষের বীর্যপাত হয় এবং নারীর যোনি ভিজে যায়। উভয়ের মধ্যেই চরমপুলকের পর মানসিক ৎফুল্লতা বিরাজ করে। চরমপুলক নারী এবং পুরুষের একসাথে আবার আগে পরে হতে পারে। এটি নির্ভিক করে যৌনমিলনের কৌশলের উপর। একেক দম্পতি একেক কৌশলে যৌনমিলনে রত হয়। ফলে চরমপুলকের ক্ষেত্রে বিভিন্নতা পরিলতি হওয়াই স্বাবাভিক

অকাল বীর্যপাত

পুরুষ যদি উত্তেজনার শুরুতেই বীর্য ত্যাগ করে তবে তাকে অকাল বীর্যপাত বলে। নারীর সাথে দৈহিক মিলনের সময় পুরুষ নানা ভাবে নারীকে উত্তেজিত করে। এই সময় উভয়েই উভয়েই শরীর স্পর্শ করে এবং নানাভাবে আদর করে। অনেক পুরুষের এই সময়েই বীর্যপাত হয়ে যায়। এতে করে পরবর্তী যৌন উত্তেজনা আর তীব্র হয় না। অকাল বীর্যপাতের ব্যাপারে কয়েকটি পরামর্শ হলো

লিঙ্গে স্পর্শ না করা।

প্রথমেই তীব্র উত্তেজিত না হওয়া

পারস্পরিক হস্তমৈথুন

লিঙ্গের উত্তেজনা ধরে রাখইত্যাদি

চিকিৎসা
ডায়াজিপাম অথবা লিব্রিয়ামের ব্যবহার

যৌনমিলনের আধাঘন্টা আগে ট্যাবলেট মেলারিল থেকে ১০ মিঃগ্রাম সেবন।
ফোঁটা ফোঁটা বীর্যপাত পুরুষের যৌন জীবনের একটি সমস্যা। বিভিন্ন শারীরিক এবং মানসিক কারণে এই অবস্থার সৃষ্টি হতে পারে। সাইকোজেনিক কারণে অবশ এই সমস্যা হয় বেশি। অনেক ক্ষেত্রে আঘাতজনিত কোনো কারণে এটি হতে পারে। বিভিন্ন কারণের মধ্যে উল্লেখযোগ্য কারণগুলো হলো

কঠিন ধর্মীয় কুসংস্কার

গর্ভাবস্থার ভয়

নারীর কাছ থেকে লাঞ্ছিত হওয়া

সেলিবেসি অবস্থার চাপ

বীর্যদানে কার্পণ্য মনোভাব ইত্যাদি

যৌনতার নানা সমস্যা

যৌনতার প্রতি নারী এবং পুরুষের আকর্ষণ একেবারে প্রাকৃতিক নারীর যৌনাতা বিষয়ে অনেকেরই ধারণা যে, নারীর যৌন উপলদ্ধি কেবলমাত্র পুরুষের সংস্পর্শে এলেই বিকশিত হয়। কিন্তু এটি সম্পূর্ণ একটি ভুল ধারণা নারী বয়ঃপ্রাপ্তির পর থেকেই যৌনতার ব্যাপারে আকাঙিত থাকে। পুরুষের যেমন একটা সুবিধা আছে যে,যৌনমিলনের হাতে খড়ি তার খুব সহজেই করতে পারে,কিন্তু নারীর ক্ষেত্রে এই ব্যাপাটি সম্ভব হয় না। অধিকাংশ নারী বিয়ের মাধ্যেমে যৌনজীবনে তথা দাম্পত্য জীবনে প্রবেশকরে এবং যৌনতার স্বাদ গ্রহণ করে। মানুষ মাত্রই যৌন জীবনের একটা প্রয়োজন রয়েছে। তবে এই যৌন জীবনের ফলস্বরূপ কেবল মাত্র প্রজননের তাগিদে যৌনতায় অংশ নেয় না। মানুষ জগতের আর দশটা প্রাণীর চাইতে আলাদা এবং উন্নত।প্রজনন ছাড়াও যৌনতার দ্বারা শারীরিক এবং মানসিক অপার আনন্দ নারীর কাম্য হয়ে উঠে। নারীর যৌন জীবনে একটি অবগুন্টিত ভাব রয়েছ তার কারণ নারী ধীরে ধীরে উদগ্রীব হয়ে উঠে।এক্ষেত্রে নারী পুরুষের মতো অতি দ্রুত উত্তেজনায় পৌঁছে যেতে পারে না। বরং নারীর উত্তেজনা আসে ধীরে ধীরে নারীর শরীরে প্রায় সবটুকু যৌন উদ্দীপক। পুরুষের মতো নারী শুধু যৌনাঙ্গে উত্তেজনা ধরে রাখে না। নারীর ঠোঁট, স্তন, নিতম্ব, তলপেট, স্তনবৃন্ত, উরু ইত্যাদি স্থানে চুমু , মৃদু দংশন এবং সোহাগের দ্বারা নারী উত্তেজিত হয়ে উঠে। একে যৌন ক্রীড়া বলে। যৌনক্রীড়া যৌনমিলনের আনন্দকে বাড়িয়ে তুলতে পারে। বিয়ের ফলে একজন নারী যৌন জীবনে পদার্পণ করে। বিয়ে হচ্ছে একটি সমাজিক বন্ধন। একজন পুরুষ এবং একজন নারী একত্রে সহাবস্থানকে বিয়ে বলা হয় নারী জীবনে বিয়ের প্রথম রাত একটি গুরুত্বপূর্ন ঘটনা। অনেক নারী এই রাতটিকে ভয় পায়। বিষেশ করে যারা ধর্মীয় কুসংস্কার দ্বারা আচ্ছন্ন তারা বিয়ের প্রথম রাতে নানা প্রকার অপ্রীতিকর কর্মকান্ড ঘটাতে পারে। আমাদের এই উপমহাদেশের বিয়ের সময় নানা প্রকার অনুষ্ঠানের আড়ম্বর থাকলেও বিয়ের পরবর্তী যৌন জীবনে নানা প্রকার শারীরিক এবং মানসিক সমস্যা দেখা দিতে পারে। কোনো কোনো ক্ষেত্রে এই জাতীয় সমস্যাগুলো জেনেটিক বা বংশগত হতে পারে। আবার অনেক সময় এর কারণ নিতান্তই শারীরিক হয়ে থাকে। তবে যৌন জীবনে যে কোনো প্রকার সমস্যাই নারী এবং পুরুষ উভয়কেই ভাবিয়ে তুলতে পারে

গর্ভাবস্থা এবং যৌনতা

গর্ভাবস্থায় যৌনতার ব্যাপারে অনেক নারীর ক্ষেত্রে সমস্যা দেখা দিয়ে থাকে। অনেক পুরুষ গর্ভকালীন নারীর সাথে যৌনমিলন ঘটাতে ইচ্ছুক থাকেনা যদিও গর্ভাবস্থায় যৌনমিলন তিকারক নয়। তবে এই সময়ে যৌনমিলনের স্বাভাবিক আসনগুলো ব্যবহার করা সম্ভব হয় না। তার বদলে বিরল আসনে যৌনমিলন করতে হয়। নারীর যদি আপত্তি না থাকে এবং পুরুষের যদি ইচ্ছা থাকে তবে গর্ভাবস্থায় যৌনমিলন চলতে পারে। গর্ভাবস্থায় যৌনমিলনে কয়েকটি ঝুঁকি রয়েছে। ব্যাপারে সতর্ক থাকা উচিত এই ঝুঁকিগুলো হলো।

পেলভিক ইনফামেশন সমস্যা।

ইনফেকশন।
অন্যান্য শারীরিক সমস্যা।

সাধারণ গর্ভাবস্থায় প্রথম দুই থেকে তিন মাস যৌনমিলনে কোনো ঝুঁকি থাকে না। তবে এর পরে গর্ভের বয়স যত বাড়ে তত বাড়তে পারে। ব্যাপারে খেয়াল রেখে যৌনমিলন করা উচিত

বিবাহোত্তর যৌনতা

যৌবন প্রাপ্তির পর পরই পুরুষ যখন বিয়ে করে তখন নতুন করে যৌনজীবন শুরু হয়। বিবাহোত্তর যৌনতার ফলে পুরুষ এবনারীর স্বাভাবিক জীবনে যৌন নানা বিষয়ে পরিবর্তন দেখা দিয়ে থাকে। যেমন আগে যখন পুরুষ হস্তমৈথুনের দ্বারা যৌন ইচ্ছার সমাপ্তি ঘটাতো তখন যৌনতার চিত্র ছিল এক রকম। কিন্তু বিয়ের পর যৌনতার ভিন্ন চিত্র দেখা দেয়। বিয়ের পরে পুরুষ এবং নারীর ব্যক্তিত্ব সংক্রান্ত পরিবর্তন এবং শারীরিক আবেগীয় পরিবর্তন দেখা দেয়। পাশাপাশি যে বিষয়টি লক্ষণীয় হয় তা হলো বিয়ের পরে পুরুষের নৈতিক চিন্তা ধারার ক্ষেত্রে পরিবর্তন দেখা দেয়। ফ্রয়েডের মতে, বিয়ের পরে এবং বিয়ের পূর্বে পুরুষের যৌন চিন্তা চেতনা থাকে সম্পূর্ণ ভিন্ন রকম। এই সময়ে পুরুষের যৌন ইচছার এবং যৌনতার অংশ গ্রহণের ব্যাপারেও পরিবর্তণ লক্ষণীয় হয়। বিবাহোত্তর যৌনতার বাইরেও বেশকিছু ক্ষেত্রে পুরুষকে যৌন জীবনে অভ্যস্ত হতে দেখা যায়। যেমন কেউ কেউ পতিতা সঙ্গমে অভ্যস্ত হয়, আবার কেউ কেউ অন্য যে কোনো উপায়ে যৌন ইচ্ছা অবদমন করে থাকে

পতিতাবৃত্তি এবং যৌনতা

অর্থের বিনিময়ে অন্যকে যৌন আনন্দ দেবার পেশাকে পতিতাবৃত্তি বলে। এটি পৃথিবীর প্রাচীনতম পেশা ২০ থেকে ৩০ বছর বয়সী নারীরাই এই পেশায় জড়িত হয় বেশি। আমাদের দেশে অধিকাংশ রী জোরর্পূবক এই পেশায় নিয়োজিত হয়। সমাজের দৃষ্টিতে পেশা নিন্দনীয় হলে কেবল মাত্র জীবিকার তাগিদে বহু নারীকে পেশা বেচে নিতে হয়। পৃথিবীর অন্যান্য দেশের মতো আমাদের দেশে পতিতাদের পুনর্বাসনের কোনো ভালো উদ্যোগ নেই পাশ্চাত্যে পুরুষ পতিতাও রয়েছে। পুরুষ পতিতাদের বলা হয় গিগালো

সমকামিতা এবং যৌনতা

প্রতিটি দেশে মোট জনসংখ্যার শতকরা তিন থেকে পাঁচ জন সমকামী। সমকামিতা পুরুষ এবং নারীরির এক প্রকার মনোদৈহিক এবং আবেগ ঘটিত সমস্যা। অনেকে আবার সমকামিতা এবং উভকামিতা পছন্দ করে। ফ্রয়েডের মতে সমকামিতা হলো অবিশুদ্ধ যৌনতার প্রকার। ফ্রয়েডের ব্যাখ্যা হলো সমকামি পুরুষ মনে করে অপর একজন পুরুষ স্পর্শ এবং আনন্দ অনুভবের দিক থেকে তার সমান এবং পুরুষের কোথায় স্পর্শে এবং কতটুকু স্পর্শ যৌন আনন্দ এবং উদ্দীপনা লাভ করা সম্ভব তা নারীর চাইতে অন্য একজন পুরুষ ভালো জানবে। এই মনোসমীক্ষণটিকে রপ্ত করেই শতকরা আশি ভাগ পুরুষ সমকামি হয়ে থাকে। নারীর ক্ষেত্রেও এই একই প্রকার মনোসমীণ কাজ করে থাকে। সমকামিতার সাধারণ অর্থ একই লিঙ্গের প্রতি আকর্ষণ পুরুষ এবং নারীর সমকামিতার লিঙ্গগত পার্থক্য ছাড়া অন্য কোনো পার্থক্য সাধারণত নেই পুরুষের পুরুষের প্রতি আকর্ষণ এবং নারীর প্রতি আকর্ষণ মনোদৈহিক এবং মানসিকভাবে হয় এবং এর পুরোটুকু ভিত্তি করে যৌনতার উপর। বিভিন্ন সমাজে সমকামিতাকে বিভিন্ন দৃষ্টিতে দেখা হয়। তবে আজকাল অবস্থার পরিবর্তন লক্ষ্য করা যাচ্ছে। সমকামিতাকে যারা পছন্দ করতেন তারাও ব্যাপারে ইদানীং আকৃষ্ট হচ্ছেন। এর প্রধান কয়েকটি কারণ হলো-

ধর্মীয় বাধা

সমকামিতার পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া

অন্যের দ্বারা যৌন লাঞ্ছিত হওয়া

নৈতিক কারণ

মূল্যবোধের কারণ

সমকামিতা এক প্রকার যৌনতা। এই যৌনতাতে একই লিঙ্গের দুজন পুরুষ অথবা নারী অংশ গ্রহন করে। প্রাচীন রোম এবং গ্রীসে প্রথম সমকামিতার প্রচলন ঘটে। তখন এই বিষয়টিকে প্রাকৃতি মনে করা হতো। পরবর্তী সময়ে এর প্রভাব পড়ে ইউরোপ ,আরব এবং দক্ষিণ আমেরিকার সমাজগুলোর উপর অধিকাংশ সমাজ বর্তমানে মেনে নেয় যে সমকামিতা একটি অস্বাভিবিক যৌনতার অনুশনীল। নারীর সমকামিতাকে ইংরেজীতে লেসবিয়ানিজম বলা হয় এবং পুরুষের সমকামিতাকে হোমোসেক্সুয়ালিটি বলা হয় ইউরোপ আমেরিকান বহু দেশে নারীরা তাদের যৌন স্বাধীনতার ফলশ্রুতি হিসেবে সমকামিতাকে বেছে নেয়। তবে এটি সব সমাজে অবৈধ এবং আইনগতভাবে নিষিদ্ধ। নারীর সমকামিতার বিভিন্ন পর্যায় নানা সময় বিশ্লেষিত হয়ে থাকে। অনেক সময় মানসিক নানা কারণকে সমকামিতার জন্য দায়ী করা হয়। কারণ জানা থাকলে এর চিকিৎসা করা সম্ভব। উভকামিতা হলো নারী এবং পুরুষ উভয়ের সাথে যৌনমিলন বা যৌনসম্পর্ক স্থাপনের বিষয় এর মাধ্যমে একজন পুরুষ বা নারী একই সাথে সমকামি বা উভকামি হতে পারে। দেখা যায় যে অনেক নারী সারা জীবন এই ভাবে যৌনজীবন কাটিয়ে দেয়। উভকামিতা এক ধরণের মনো সমস্যা। মনোবিজ্ঞানী কিনসের একটি সমীক্ষা এখানে উল্লেখ করা হলো-

. শুধুমাত্র বিপরীতকামী। অর্থা নারীর যৌনচেতনা এবং যৌনমিলনের ইচ্ছা কেবল তার বিপরীত লিঙ্গ অর্থা পুরুষকে ঘিরে।

. পুরো মাত্রায় বিপরীতকামী, আবার সময় সুযোগে উভকামী

. নারী মূলত পুরুষের প্রতি আগ্রহী

. সমকামী এবং উভকামী

. নারীর উভকামিতা কিন্তু সময়ে সময়ে সমকামিতা

লিঙ্গ

পুরুষের প্রধান যৌনাঙ্গ হলো লিঙ্গ লিঙ্গের দৃঢ়তার উপর নির্ভর করে পুরুষের যৌন মিলনে অংশ গ্রহণের ব্যাপারটি এই লিঙ্গের মধ্য দিয়ে বীর্য এবং মূত্র বের হয় লিঙ্গ হলো পুরুষের বহিঃ যৌনাঙ্গের মধ্যে অন্যতম লিঙ্গের সামনে একটি আবরণ ত্বক থাকে খতনার দ্বারা একে কেটে ফেলা ইংরেজীতে এই ত্বককে বলে ফোর স্কিন লিঙ্গে অসংখ্য কোষ কলা রয়েছে এগুলোর প্রভাবে উত্তেজনার সৃষ্টি হয় পুরুষের লিঙ্গের ভেতর সবচেয়ে পুরু কৌষিক ঝিল্লির নাম হলো করপরা কে ভারনোসা

অন্ডথলি-
অন্ডকোষ হলো দুটো বলের মতো থলি যেখানে শুক্র তৈরী হয় এগুলোর স্বাভাবিক পরিমাপ হলো দেড় ইঞ্চি এগুলো লিঙ্গের নিচে ঝুলে থাকে পুরুষের যৌন হরমোন এবং বীর্য ৎপাদনই হলো অন্ডকোষ দুটোর কাজ

এপিডিডাইমিস-
প্রতিটি অন্ডকোষের উপরের অংশকে এপিডিডাইমিস বলে এপিডিডাইমিস হলো বীর্যের সংরণের স্থান টিউব এবং অন্যান্য নালী বেয়ে বীর্য এপিডিডাইমিস থেকে অন্ডকোষে চলে আসে

ভাস ডিফারেন্স-

প্রোস্টেট গ্ল্যন্ড থেকে দুটো সেমিনাল কোষ সেমিনাল তরলের মিশ্রণ নিয়ে এপিডিডাইমিসে এসে পৌঁছায়। এই চলাচলের নালী হলো ভাস ডিপারেন্স।এটি পুরুষের আভ্যন্তরীণ যৌনাঙ্গ

প্রোষ্টেট গ্ল্যান্ড

মূত্র থলির উপরে প্রোস্টেট গ্ল্যান্ডের অবস্থান এই গ্ল্যান্ডের প্রোস্টেট তরল ৎপাদিত হয় শতকরা ৩৮ ভাগ এবং সেমিনাল তরল ৎপাদিত হয় ৬০-ভগ,বাকি এক ভাগ বীর্যে ৎপাদিত হয়

নারীর অভ্যন্তরীণ যৌনাঙ্গ

নারীকে পুরুষের চাইতে আরো যে বিষটি স্বতস্ফূর্তভাবে পৃথক করেছে ,তা হলো নারীর অভন্তরীণ যৌনাঙ্গ ,তথা যোনি পুরুষের লিঙ্গ বহিঃমুখী অথচ নারীর যৌন লিঙ্গ নেই , তবে যৌনাঙ্গ হিসেবে রয়েছে যোনি এই যোনির মাধ্যমেই নারী পুরুষের সাথে যৌন মিলনে মিশে যায়। যোনি যৌন উত্তেজনার সময় পিচ্ছিল হয়ে উঠে। কেননা যৌন উত্তেজনার সময় নারীর ভেতর তরলের রণ হতে থাকে নারীর যৌন স্বাভাবিক আকারে সেঃমিঃ প্রায় সাড়ে তিন ইঞ্চি। তবে এটি বিভিন্ন সময়ে পরিবর্দিত হয় যেমন যৌনমিলনের সময় , সন্তান জন্মের সময় এমনকি হস্তমৈথুনের বা স্বমেহনের সময়। যোনির সাথে সম্পর্কযুক্ত একই মাত্রার অঙ্গ হলো সারবিঙ যোনিতে প্রায় ত্রিশ রকমের কৌশিক কলা রয়েছে এগুলো গভীর এবং যৌনমিলনের সময় লিঙ্গের চাপ এটি সহ্য করে নিতে পারে যোনি থেকে সাধারণত ল্যাকটিক এসিড রিত হয়। একে যৌনরস বা মিউকাস বলা হয় এটি যৌন উদ্দিপক এক প্রকার তরল নারীর যৌন উত্তেজনার চূড়ান্ত পর্যায়ে এই তরল যোনি বেয়ে বাইরে চলে আসতে পারে। নার অপরাপর আভ্যন্তরীণ যৌনাঙ্গগুলো হলো , জরায়ু , পেলভিস, ওভারি ইত্যাদি। জরায়ুবা ইউটেরাস নারীর যৌন জীবনের জন্য সবচেয়ে বেশি প্রয়োজনীয় একই সাথে এটি গুরুত্বপূর্ণ বটে নারীর যৌন জীবনের ততোথিক গুরুত্বপূর্ণ যৌনাঙ্গ হলো ওভারি বা ডিম্বাসয় যৌনমিলনের পরে পুরুষের লিঙ্গ নিঃসৃত বীর্য নারীর ওভারিতে ডিম্বাশয়ে জমা হয় এবং তার পরে এটি ফ্যালোপিয়ান টিউব বেয়ে উপরিস্থিতি অংশ হলো ওভিডাক্ট। এটি ফ্যালোপিয়ান টিউবের সাথে সম্পর্কযুক্ত একটি অঙ্গ মোটা মুটি এই হচ্ছে নারীর অভ্যন্তরীণ যৌনাঙ্গ যার দ্বারা নারীর যৌন জীবন পূর্ণাঙ্গ হয়

প্রথম প্রেম

বয়ঃসন্ধির পরে কৈশোর এবং যৌবনের মাঝামাঝি সময়ে ছেলে-মেয়েদের ভেতর রোমান্টিক অনুভূতির সৃষ্টি হয় এর কারণ সম্পূর্ণ মনস্তাত্ত্বিক এসময়ে অধিকাংশ ছেলে মেয়েদের মনে খুব তীব্র এবং গভীর ভালোবাসার অনুভূতির সৃষ্টি হয় সাধারণ ভাবেই এই অনুভূতির চাপে ছেলে মেয়েরা প্রেম করে এবং পরবর্তীতে বিয়ে করে যদি প্রেমের সম্পর্ক কেবল মাত্র শরীর ভিত্তিক হয়ে দাঁড়ায় তবে সেটি স্বচ্চ প্রেম থাকেনা তবে মনোস্তাত্ত্বিকদের মতে প্রেম ভালোবাসার ভেতর দেহজ অনভূতির সূষ্টি হওয়াটা স্বাভাবিক। প্রথম প্রেম ছেলে-মেয়েদের ভেতর তীব্র আকর্ষণের সৃষ্টি করে যার ফলে একে অন্যকে তীব্র ভাবে অনূভব করে এই অনুভূতীর প্রকাশ ঘটে চুমুতে স্পর্শে অথবা সঙ্গম বহির্ভূত যৌনতার ভেতর দিয়ে। এই সময়ে সাধারণভাবে ছেলে মেয়েদের দুশ্চিন্তা বৃদ্ধি পায় এবং তারা কিছু পরিমানে বিষণ্ন হয়ে পড়ে। এটিও আবেগজনিত মানসিক কারণে সংঘটিত হয়

পুরুষের হস্তমৈথুন

পৃথিবীব্যাপী প্রায় ৮৫ ভাগ পুরুষ প্রতিনিয়ত হস্তমৈথুনের সাথে জড়িত হস্তমৈথুন এক প্রকার যৌন আনন্দ লাভকারী পদ্ধতি পুরুষ তার নিজের লিঙ্গ নিজেই স্পর্শের দ্বারা উক্তেজিত করে তোলে এবং বীর্যপাত ঘটায় এটি হলো হস্তমৈথুন হস্তমৈথুনকে স্বমেহন বলা চলে। তবে স্বমেহন নারীর ক্ষেত্রে বেশি প্রযোজ্য এবং মানানসই শব্দ। হস্তমৈথুন প্রাক কৈশোরকালীন সময়ে শুরু হয় অবশ্য মনোদৈহিক নানা কারনে অনেকে হস্তমৈথুন করে থাকে যেমন অনেক বিপত্নীক পুরুষ যৌন ইচ্ছা অবদমনের জন্য হস্তমৈথুনের সাহায্য নেয় আবার অনেকে পুরুষ যৌনমিলনের পরিপূর্ণ তৃপ্তি না পেয়ে নিজে নিজেই যৌন আনন্দ পাবার জন্য হস্তমৈথুন করে থাকে। আর কৈশোরকালীন সময়ে শারীরিক ভাল লাগার বাসনায় ছেলেরা হস্তমৈথুন করে থাকে

স্বপ্নদোষ

প্রতিটি পুরুষের জীবনে স্বপ্নদোষের ব্যাপারটি ঘটে থাকে অন্তত একবার হলেও এটি ঘটবেই প্রথম প্রথম অনেক ছেলে বুঝতে পারেনা এটা কি হলো রাত্রিতে ঘুমানোর পরে গভির নিদ্রায় গিয়ে পুরুষ স্বপ্নে যৌনতার নানা বিষয় দেখতে পায়। হয়ত সে দেখে সে করো সাথে যৌনমিলন করছ অথবা যৌনতা সংশ্লিষ্ট নানা ব্যবহারিক আচার-আচরণ দেখতে পায় কিনসের মতে এই সময়ে বহু ছেলেই তার চেনা এবং পরিচিত নারীর সাথে যৌনমিলনের বা যৌনচরণের স্বপ্ন দেখে এতে করে চুড়ান্ত পর্যায়ে গিয়ে তার চরমপুলক হয় এবং বীর্যপাত ঘটে একে স্বপ্নদোষ বলা হয় অনেক ছেলের ছেই এটি ভীতিকর উপসর্গ হিসাবে চিহ্নিত হয় কেননা তারা মনে করে এর ফলে পাপ হচ্ছে এবং পাশাপাশি লিঙ্গের দৃঢ়তা কমে যাচ্ছে। বাস্তব বিষয়টি হলো স্বপ্নদোষ একেবারেই স্বাভবিক এবং শারীরবৃত্তীয় কারণে সংগঠিত একটি শারীরিক প্রক্রিয়া মাত্র এই বয়সে যে কোন ছেলের ক্ষেত্রেই এটি ঘটতে পারে এতে ভীতির কোনো কারন নেই

নারীর স্বমেহন

যৌনমিলন ছাড়া নারী চূড়ান্ত যৌন আনন্দ পেতে পারে এটি হচ্ছে নারীর স্বমেহন প্রক্রিয়া নারী যদি স্বমেহন বা হস্তমৈথুন করে তবেও তার যৌন আনন্দ পেতে পারে নারীর ভগাংকুরের অংশটি সবচেয়ে বেশি উত্তেজক অংশ এখানে নারী হাতের স্পর্শে বা যৌনির ভেতরে লিঙ্গ সদৃশ্য কোনো কিছু ঢুকিয়ে নারী যৌন আনন্দ পেতে পারে অনেকে মনে করেন যৌনমিলন ছাড়া যৌন আনন্দ পাওয়া আদৌ সম্ভব নয় কিন্তু এটি সত্য যে স্বমেহন যৌন জীবনের একটি স্বাভাবিক অংশ এটি শারীরিক কোনো তি করে না এটি দিনে রাতে যে কোনো সময় যৌন সঙ্গি বা সঙ্গিনীর সাহায্য ছাড়াই করা যেতে পারে যৌন বিশেষজ্ঞ হ্যাভলক এলিস মনে করেন হস্তমৈথুন বা স্বমেহন বহু নারী কে অন্য মাত্রার যৌনানুভূতি এনে দিতে পারে হয়তো নারী ঠিক এভাবে এর আগে কখনো যৌন আনন্দ অনুভব করেনি স্বমেহন ক্ষেত্রে যে ব্যাপারটি ঘটে সেটি হলো নারী তার যৌন অনুভূতিকে নিজে নিজেই নিয়ন্ত্রণ করতে পারে কৈশোরকালিন সময়ে সাধারণত একজন নারী বা পুরুষ স্বমেহনের ব্যাপারে জানতে পারে স্বমেহন নারীর যৌন আনন্দের তীব্রতা বাড়াতে পারে এটি পুরুষের জন্য সমানভাবে আনন্দজনক পুরুষ গড়ে নারীর চাইতে বেশি হস্তমৈথুন করে থাকে পুরুষ এবং নারীর স্বমেহনের পর পার্থক্য হলো পুরুষ শতকরা ৮১ জন এবং নারী শতকরা ৫৯ জন নারী এবং পুরুষ যৌন আনন্দের বিকল্প উপায় হিসাবে স্বমেহনকে বেছে নেয় আবার কেউ কেউ স্বমেহনকালীন সময়ে যৌন ফ্যান্টাসিকে গ্রহন করে এতে করে যৌন অনুভূতি আরো বেড়ে যেতে পারে বয়ঃসন্ধিকালীন সময়ে নারীর স্বমেহনের ব্যাপারে অতি ৎসাহ দেখা যেতে পারে এর প্রধান কারণ এই সময়ে নারীর শরীরে হরমোন নিঃসরণের পরিমান বেড়ে যায় অনেক পিতা মাতা তাদের ছেলে বা মেয়ে কে যৌনতা একটি নোংরা ব্যাপার এই বিষয়ে ধারণা দেন এরকম ধারণায় পরবর্তী সময়ে বিশ্বাসী হয়ে অনেক নারী এবং পুরুষ যৌনতার ব্যাপারে অনাগ্রহি হয়ে উঠে মনে রাখা উচিত যৌনতা আদৌ কোনো খারাপ বিষয় নয় এটি মনোদৈহিক এবং শারীরিক ৎকর্ষতা তৈরি করে তবে পাশা-পাশি এটিও সত্য যে অতিরিক্ত স্বমেহন নারীর এবং পুরুষের স্ব্যাস্থগত সমস্যারও সৃষ্টি করতে পারে এটি ততোণ ভাল যতোণ পর্যন্ত শরীরে প্রয়োজনীয় পুষ্টি এবং ভিটামিনের স্থিতিস্থাপকতা বজায় থাকে নারীর জন্য কোনো কোনো সময় স্বমেহনের প্রয়োজনীয়তা দেখা দিতে পারে এটি সুস্থ্য যৌনতারই প্রকাশ ঘটায় তবে পুরুষদের হস্তমৈথুন সংক্রান্ত কিছু ধারণা হলো

হস্তমৈথুন যৌন উত্তেজনা কমায় না

হস্তমৈথুনে বীর্যপাত হয় সামান্য

হস্তমৈথুনের সময় যৌন উত্তেজক ছবি দেখা ভলো

হস্তমৈথুনে লিঙ্গের দৃঢ়তা বাড়ে ইত্যাদি

পাশাপাশি বহু পুরুষের যৌনতা এবং হস্তমৈথুন সম্পর্কে কিছু ভ্রান্ত ধারণা আছে এবং তারা হস্তমৈথুনকে পাপ মনে করেন সাধারণত এই বিশ্বাসগুলো সৃষ্টি হয় বিভিন্ন কারণে যেমন-

বৃদ্ধ বয়সে ধর্মীয় বিশ্বাস

ডাক্তারী ভ্রান্ত কৌশল অবলম্বন

পিতা মাতার কঠোর শাসন

সব নারীকেই পবিত্র মনে করা

ডাক্তারদের ভুল ব্যাখ্যা

কুসংস্কার ইত্যাদি

এর পাশপাশি একজন হস্তমৈথুনকারী আরো বিভিন্ন বিষয় চিন্তা করে দুশ্চিন্তাগ্রস্ত হয়ে পড়ে অন্যান্য ক্ষেত্রে তার চিন্তা ভাবনা বিশ্বাসগুলো হলো:

এটি শারীরিক মানসিক অসুস্থতার সৃষ্টি করে

এটি চোখের দৃষ্টি কমিয়ে দেয়

এক ফোঁটা বীর্যে চল্লিশ ফোঁটা রক্ত থাকে

অতিরিক্ত হস্তমৈথুন পুরুষকে পুরুষত্বহীন করে তোলে

হস্তমৈথুন লিঙ্গের ্লায়ু এবং রক্তচলাচলের কোষকে দুর্বল করে তলে

এটি পিঠ ব্যথার সৃষ্টি করে

এটি সামাজিকতার চোখে নিন্দনীয়

এটি একজন পুরুষকে সমকমী করে তুলতে পারে

উপরের সবগুলোই চিন্তা ভ্রান্ত এবং বাস্তবতা বহির্ভূত হস্তমৈথুন কোনো কোনো সময় মানসিক চাপ সৃষ্টি করে ঠিকই কিন্তু এর ফলে দৈহিক এবং মানসিক কোনো পরিবর্তন হয় না হস্তমৈথুনের ব্যাপ্যারে কিনসে প্রকাশিত আসল তথ্যগুলো হলো -

পরিমিত মাত্রার হস্তমথুন ভালো।
২৫ বছরের পর দৈনন্দিন হস্তমৈথুন তিকর নয়

এটি একটি স্বাভাবিক শারীরিক প্রক্রিয়া

এটি আত্নবিশ্বাস বাড়ায়

মাত্রা অতিরিক্ত হস্তমৈথুন (যেমন দিনে একাধিক বার) খারাপ

এটি যৌন অনুভূতি চাঙ্গা করে

হস্তমৈথুন যৌনমিলনের কৌশল বাড়াতে সাহায্য করে

এটি আত্মতপ্তিদায়ক যৌন অভ্যাস

স্বাভাবিকভাবে হস্তমৈথুনের ফলে কেউ যদি মানসিক এবং শারীরিক ভাবে দুর্বল হয়ে পড়ে এবং ব্যাপারটি নিয়ে উদ্বিগ্ন হয়ে পড়ে তবে নিচের ব্যবস্থাপত্র গ্রহন করা উচিতবি কমপ্লেঙ ইনজেকশন প্রতি দিন একটি করে পনের দিন

ট্যাবলেট এম ভি এফ এঙ এক মাস সেবন করতে হবে

প্রতিদিন ঘুমের আগে ৫মিলি গ্রাম ডায়াজিপাম একটি করে সেবন করতে হবে।

ট্যাবলেট সেট্রা-৫০ মিলিগ্রাম প্রতিদিন একটি করে সেবন করতে হবে

যৌন মিলনের তৃপ্তি

কিছুদিন আগেই বৃটেনে সেক্স নিয়ে একটা সমীক্ষা চালানো হযেছিল৷ সমীক্ষার মূল বিষয়টা ছিল দম্পতিরা কোন সময়ে তাদের যৌন মিলনে পরম তৃপ্তি লাভ করেছেন? এতে বিভিন্ন প্রেমিক-প্রেমিকা এবং দম্পতিদের মতামত ভোটের মাধ্যমে জানা হয়৷ এতে বেশীরভাগই জানিয়েছেন একসঙ্গে চার বছর কাটানোর পরেই তারা জীবনে যৌন মিলনের চরম তৃপ্তিটা লাভ করেছেন৷ এই সমীক্ষায় মোট 3000 ভোট পড়েছে৷

এতে এক চতুর্থাংশ এর মতে কয়েক বছর একসঙ্গে কাটানোর পরেই তারা শারীরিক মিলনের ক্ষেত্রে বেশী পারদর্শী হতে পেরেছেন৷ অপরদিকে 60 শতাংশ মানুষ জানিয়েছেন তারা এখনও নতুন জিনিস শেখার চেষ্টা করছেন৷ এক দশমাংশের মতে বিয়ের পরেই যৌন মিলনের বিষয়ে তারা বেশী পরিমাণে শিখতে পেরেছেন৷

এই প্রসঙ্গে সার্ভের অধিকর্তা জানিয়েছেনসেক্স হল জীবনের অন্যান্য সম্পর্কের মত একটা অংশ৷ সময়ের উপরেই এর বৃদ্ধি এবং উন্নতি নির্ভর করে৷

যৌন মিলনে বডি ফিটনেস বাড়ে

যৌন মিলন দাম্পত্য জীবনে সুখের অনুভূতি এনে দেয়৷ এতে সম্পর্ক এতটাই মধুর হয় যে স্বামী-স্ত্রী একে অপরকে ছেড়ে থাকতে পারেন না৷ এক কথায় বলা যায় সুস্থ স্বাভাবিক শারীরিক সম্পর্কই হল দাম্পত্যের জীবনের সুখের চাবিকাঠি৷ তবে জানেন কি শারীরিক মিলন শুধু শারীরিক মানসিক সুখানুভূতিই এনে দেয় না৷ এর সঙ্গে বডি ফিটনেস বাড়াতেও সাহায্য করে৷

প্রতিদিন আপনি যদি নিয়মিত আপনার সঙ্গীর সঙ্গে মিলিত হতে পারেন তাহলে আপনার বডি ফিটনেস বাড়বে৷ এর সঙ্গে মনে স্ফূর্তিও বজায় থাকবে৷ কথা জানিয়েছেন হলিউডের হট গায়িকা মেলাইন ব্রাউন৷ মেলাইন তাঁর স্বামীর সঙ্গে বেশীর ভাগ সময়ে সপ্তাহে পাঁচবার মিলিত হন৷ আর তাঁর বডি ফিটনেসটা সেই কারনেই একেবারে পারফেক্ট রয়েছে৷

উভকামী

উভকামী
এটা হলো নারী এবং পুরুষ উভয়ের সাথে যৌনঙ্গমের পন্থা। এর মাধ্যমে একজন পুরুষ বা নারী একই সাথে সমকামী এবং উভকামী হতে পারে। দেখা যায় যে, কোনো কোনো ক্ষেত্রে সারাজীবন এইভাবে যৌন জীবন কাটিয়ে দেয় অনেকেই

মনোবিজ্ঞানী কিনসের একটি পরীক্ষা এখানে দেখানো হলো-

. শুধুমাত্র বিপরীতকামী অর্থা পুরুষের সমস্ত যৌনচেতনা এবং যৌনমিলনের ইচ্ছা তার বিপরীত লিঙ্গ অর্থা নারীকে ঘিরে।

. পুরোমাত্রায় বিপরীতকামী, আবার সময় সুযোগ উভকামী

. নারী মূলত পুরুষের প্রতি আকর্ষনীয় কোনো কোনে ক্ষেত্রে অন্য পুরুষের কাছে থেকে যৌন তৃপ্তি গ্রহন।

. সমকামী এবং উভকামী

. অন্য পুরুষের প্রতি এক পুরুষের অধিক কামনা কিন্ত তার স্ত্রীর প্রতিও আকর্ষণ।

. সমকামী এবং উভকামী

মিলনের আকর্ষণ CUDDLING এ


শারীরিক মিলন প্রত্যেক পুরুষ এবং নারীর কাছেই কাম্য৷ জীবনের একটি গুরুত্বপূর্ণ দিক হল শারীরিক সম্পর্ক৷ স্বামী-স্ত্রীর সম্পর্ক অনেকাংশে দের শারীরিক সম্পর্কের ওপরেও নির্ভরশীল হয়৷

শারীরিক সম্পর্কের দিকে পুরুষ এবং নারীর দৃষ্টি ভঙ্গী, মানসিকতা বা চাওয়া কিন্তু এক নয়৷ দুজনের পরিতৃপ্তির পথও একরকম নয়৷ শারীরিক মিলন কালীন বিভিন্ন পর্যায় পুরুষ এবং নারীকে পৃথক ভাবে আকর্ষন করে৷

সাম্প্রতিক একটি গবেষন দ্বারা জানা গেছে, শারীরিক মিলনের বিভিন্ন পর্যায় গুলির মধ্যে মহিলাদের কাছে সব থেকে বেশী আকর্ষণীয় হল মিলনের পরবর্তী সময়ে সঙ্গীর সান্নিধ্য৷ অর্থাত foreplay, intimate interaction পর্যায়ের থেকেও তাদের বেশী ভালো লাগে cuddle time অর্থাত মিলনের পরে সঙ্গীকে অনেক ক্ষণ জড়িয়ে ধরে রাখতে মহিলারা বেশী পছন্দ করেন৷

প্রায় বেশীর ভাগ মহিলারাই যৌন মিলনের পরে একান্ত ঘনিষ্ঠ মুহুর্ত চায়৷ সে চাহিদায় তারা পরিতৃপ্ত না হতে পারলে তাদের সঙ্গীর শারীরিক সংসর্গ তাদের খুশী করতে পারে না৷ এই অতৃপ্তির কারণে বেশীর ভাগ মহিলারই তার পুরুষ সঙ্গটিকে selfish বলে মনে হয়৷ কারণ তাদের মতে যৌন পরিতৃপ্তির সঙ্গে মানসিক সান্নিধ্যও সম্পর্কের ক্ষেত্রে খুব গুরুত্বপূর্ণ৷ আর মানসিক ছোঁয়া তারা অনুভব করেন মিলন পরবর্তী সান্নিধ্য মাধ্যমে৷

যৌণতা সম্পর্কে নানা সত্য-মিথ্যা ধারণা

ভুলে যান কন্ডোম, রেডি ইঞ্জেকশন

মহিলা সঙ্গীর সঙ্গে সহবাসের ইচ্ছা হলে এখন থেকে কন্ডোমের আর প্রয়োজন পড়বে না, এর জন্য প্রস্তুত গর্ভনিরোধক ইঞ্জেকশন৷ সাধারণত সহবাসের সময় অনেকক্ষেত্রে পুরুষরা কন্ডোম পড়তে দ্বিধাবোধ করেন, আর তাদের জন্য এটা অত্যন্ত সুখবর৷ মহিলাদের গর্ভনিরোধক ট্যাবলেটের পর বৈজ্ঞানিকরা পুরুষদের জন্য গর্ভনিরোধক ইঞ্জেকশন প্রস্তুত করেছেন৷ বৈজ্ঞানিকদের দাবি অনুযায়ী এটা বলা যেতে পারে যে কন্ডোমের থেকে এটা শুধু ভালোই হবে তা নয়, এর কোনরকম সাইড এফেক্ট নেই যখন খুশী ইচ্ছামত এর প্রভাব সমাপ্ত করাও যেতে পারে৷ স্কটল্যান্ডের পত্রিকাদ্য স্কটিশ সন প্রকাশিত রিপোর্টে বলা হয়েছে এডিনবার্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের বৈজ্ঞানিকরা পুরুষদের জন্য গর্ভনিরোধক ইঞ্জেকশন প্রস্তুত করেছে, যেটার পরীক্ষা সমগ্র বিশ্বে 400টি জোড়া বিবাহিত স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে করবার পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে৷ এই পরীক্ষার নেতৃত্বে থাকা প্রফেসার রিচার্ড অ্যান্ডারসন জানিয়েছেন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংগঠনের দ্বারা সঞ্চালিত এই পরীক্ষায় 37-45 বছরের মধ্যে 400 জোড়া যুগল শামিল করা হবে এই পরীক্ষার কোন সাইড এফেক্ট নেই৷



যৌন মিলনের বেশী আকাঙ্খা থাকে আধ্যাত্মিক মহিলাদের

যে সব মহিলারা আধ্যাত্মিক পথে যান তাদের ভৌতিক সুখ ভোগের প্রতি কোন আকর্ষণ থাকে না৷ জীবনের আনন্দটা তারা ঈশ্বরের সাধনার মধ্যে দিয়েই লাভ করেন৷ এই ধারণা একেবারেই ভ্রান্ত৷ সম্প্রতি একটি গবেষনায় প্রমানিত হয়েছে যে সব আধ্যাত্মিক চিন্তাভাবনা করেন তাদের মধ্যে যৌন মিলনের তীব্র আকাঙ্খা জন্মায়৷ কিছুদিন আগেই কেটুকি বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা এই বিষয়টি নিয়ে গবেষনা করেছেন৷ তাদের রিসার্চে ধরা পড়েছে আধ্যাত্মিক পথে যে সব পুরুষরা যান তাদের নিজেদের মধ্যে সংয্মটা বজায় রাখতে পারেন৷ কিনতু মহিলাদের মধ্যে যাদের বয়সটা কম হয়, তাদের শারীরিক মিলনের তীব্র আকাঙ্খা জন্মায়৷



ডায়াবেটিস এবং যৌনতা

ডায়াবেটিস নারী এবং পুরুষের শরীরের অটোনমিক স্নায়ু ব্যবস্থাকে দুর্বল করে দেয়। ফলে পুরুষের কিংবা নারীর দৈহিক চলৎশক্তি নিষ্ক্রিয় হতে থাকে। তবে এটি ধীরে ধীরে সংগঠিত হয়। ডায়াবেটিসের ফলে জন হ্রাস পায়, পলিফাগিয়াপলিরিয়া পেরিফেরালনিউরোপ্যাথী ইতযাদি দেখা দিতে শুরু করে। ডায়াবেটিসের ফলে কেবল মাত্র শারীরিক নানা সমস্যাই যে হয় তা নয় বরং এর ফলে পুরুষের পুরুষত্বহীনতা সমস্যা দেখা দিতে পারে। মধ্য বয়সে ডায়াবেটিস আক্রমন করে সবচেয়ে বেশি। এই সময়ে শারীরে অটোনমিক স্নায়ু ব্যবস্থায় মাত্রাতিক্ত চাপের সৃষ্টি হয়। য়াবেটিস এর প্রধান পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হলো পুরুষের জন্য নানা প্রকার যৌন সমস্যা। পুরুষত্বহীনতার সাথে ডায়াবেটিসের সম্পর্কটি মনোদৈহিক এবং শারীরিক হতে পারে। উত্থানজনিত নানা সমস্যাই মূলত পুরুষত্বহীনতার সমস্যার সৃষ্টি করে। যা ডায়াবেটিস হলে পরে সমস্যাটি আরো জটিল হয়ে পড়ে। আমরা জানি উত্থানের জন্য প্রয়োজন।

অটোনমিক এবং সোমাটিক স্নায়ু ব্যবস্থা।

এনগোরাস করপোরাস উত্থান।

হিপোথেলামাসের চূড়ান্ত নিয়ন্ত্রণ।

পিটুইটারী হরমোনের প্রভাব ইত্যাদি।

ডায়াবেটিস হলে এই সমস্ত প্রকার ক্রিয়া প্রতিক্রিয়ার উপর চাপ সৃষ্টি হয়। যাতে করে লোম্বর সিনথেটিক সমস্যার সৃষ্টি হয় এবং তা দীর্ঘস্থায়ীভাবে যৌন সমস্যার সৃষ্টি করে। ডায়াবেটিসের কারণে পুরুষের অন্যান্য যে যৌন সমস্যা দেখা দেয় সেগুলো হলো।

রেট্রাগেটেড বীর্যপাত।

মূত্র থলির ইনফেকশন।

ফোঁটা ফোঁটা বীর্যপাত।

বীর্যপাতে ব্যথা।

যৌনতায় অনীহা।

কেটো এসিডোসিস।

বীর্যপাত কম হওয়া।

সূত্রঃ প্রফেসর ডাঃ মোহাম্মদ ফিরোজ



এলকোহল এবং যৌনতা

যে সব পুরুষ ক্রনিক এলকোহল সেবন করেন তাদের যৌন জীবন মারাত্নকভাকে তিগ্রস্ত হতে পারে। নন সাইকোজেনিক পুরুষত্বহীনতার জন্য এলকোহল প্রধানত দায়ী। অনেক পুরুষের ধারণা এলকোহল গ্রহণে যৌন উত্তেজনা এবং আগ্রহ বাড়ে। আসলে এটি ভ্রান্ত ধারণা। এলকোহল বা মদ্যপানের ফলে নানা বিধি শারীরিক এবং মানসিক পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দিয়ে থাকে যাতে করে যৌনতা তিগ্রস্ত হতে পারে এলকোহল পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াগুলো হলো।

মনোযোগের অভাব।

স্মৃতিশক্তি কমে যাওয়া।

আত্ন নিয়ন্ত্রণ কমে যাওয়া।

শরীরে অবশ অনুভূতি।

স্পর্শকাতরতা কমে যাওয়া।

পেরিফেরাল নিউরোপ্যাথী।

লিঙ্গ উত্থানজনিত সমস্যা।

যৌন স্পর্শকাতরতা কমে যাওয়া।

ওসটেরয়ডাল মাত্রা বেড়ে যাওয়া।

প্লাজমা টেসটোসটেরন এবং হিপোগোনাডিজম কমে যাওয়া। সেমিনাল রণের অস্বাভাবিক অবস্থা।

গোনাডাট্রোফিনস কমে যাওয়া।

যৌন নানা সমস্যা।

পুরুষত্বহীনতা

মধ্য বয়সে এবং পরবর্তী সময়ে যৌনতা সংক্রান্ত যে কোনো প্রকার সমস্যা থেকে বাঁচতে এলকোহল গ্রহন থেকে বিরত থাকা উচিত। পাশাপাশি সুষম খাদ্য এবং ব্যায়ামের প্রয়োজনীয়তা রয়েছে। এছাড়া ডাক্তারের পরামর্শ নেয়া প্রয়োজন।

সূত্রঃ প্রফেসর ডাঃ মোহাম্মদ ফিরোজ

Your Ad Here

স্বপ্নদোষ

স্বপ্নদোষ হলো একজন পুরুষের ঘুমের মধ্যে বীর্যপাতের অভিজ্ঞতা। এটাকেভেজাস্বপ্ন বলা হয়।
১৩ থেকে ১৯ বছর বয়সী ছেলেদের এবং প্রাপ্তবয়স্ক হওয়ার প্রাথমিক বছরগুলোতে স্বপ্নদোষ খুব সাধারণ। তবে বয়ঃসন্ধিকালের পরে যেকোনো সময় স্বপ্নদোষ হতে পারে। এটার সাথে যৌন উত্তেজক স্বপ্নের সম্পর্ক থাকতে পারে, আবার নাও পারে। আবার পুরুষদের উত্থান ছাড়াই স্বপ্নদোষ ঘটতে পারে। ঘুম থেকে জাগার সময় কিংবা সাধারণ ঘুমের মধ্যে যে স্বপ্নদোষ হয়, তাকে কখনো কখনোসেক্স ড্রিমবলে। মহিলাদের ঘুমের মধ্যে চরম পুলক লাভের অভিজ্ঞতা ঘটতে পারে।

স্বপ্নদোষের মাত্রা
স্বপ্নদোষের পরিমাণ ভিন্ন ভিন্ন হয়। কিছু পুরুষের টিনএজারদের মতো বেশিসংখ্যক স্বপ্নদোষ হয়, আবার অনেক পুরুষের একবারও হয় না। যুক্তরাষ্ট্রের ৮৩ শতাংশ পুরুষের জীবনে কখনো না কখনো স্বপ্নদোষের অভিজ্ঞতা ঘটে। পশ্চিমা দেশগুলোর বাইরের দেশগুলোতে ৯৮ শতাংশ পুরুষের স্বপ্নদোষের অভিজ্ঞতা ঘটে। অবিবাহিতদের ক্ষেত্রে, ১৫ বছর বয়সী ছেলেদের সপ্তাহে .৩৬ বার থেকে শুরু করে ৪০ বছর বয়সী পুরুষদের সপ্তাহে .১৮ বার স্বপ্নদোষ হয়। বিবাহিত পুরুষদের ক্ষেত্রে এই মাত্রা ১৯ বছর বয়সী ছেলেদের সপ্তাহে .২৩ বার কে ৫০ বছর বয়সী পুরুষদের সপ্তাহে .১৫ বার হয়।

কিছু পুরুষ কেবল একটা নির্দিষ্ট বয়সে ধরনের স্বপ্ন দেখেন, পক্ষান্তরে অন্য বয়ঃসন্ধিকালের পর থেকেই সারাজীবন ধরনের স্বপ্ন দেখতে থাকেন। ঘন ঘন স্বপ্নদোষের সাথে ঘনঘন হস্তমৈথুন করার সুনিশ্চিত সম্পর্ক নেই। বিশ্বখ্যাত যৌন গবেষক আলফ্রেড কিনসে দেখেছেন, ‘ঘনঘন হস্তমৈথুন এবং ঘনঘন যৌন উত্তেজক স্বপ্নের মধ্যে কিছুটা সম্পর্ক থাকতে পারে। সাধারণভাবে যেসব পুরুষের ঘনঘন স্বপ্নদোষ হয়, তারা কম হস্তমৈথুন করেন। এসব পুরুষের কেউ কেউ গর্বিত হন এই ভেবে যে, তাদের ঘনঘন স্বপ্নদোষ হয়, কারণে তারা হস্তমৈথুন করেন না। অথচ এদের বেলায় উল্টোটা সত্যি। তারা হস্তমৈথুন করেন না কারণ তাদের ঘনঘন স্বপ্নদোষ হয়।

একজন পুরুষের স্বপ্নদোষের মাত্রা বেড়ে যায় যদি তিনি টেস্টোসটেরনসমৃদ্ধ ওষুধ গ্রহণ করেন। একটি গবেষণায় দেখা গেছে, কিছুসংখ্যক বালক টেস্টোসটেরনের মাত্রা বাড়ানোর ফলে তাদের স্বপ্নদোষের মাত্রাও মারাত্মকভাবে বেড়ে গেছে। ১৭ শতাংশ থেকে বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৯০ শতাংশে।

বয়ঃসন্ধিকালে ১৩ শতাংশ পুরুষের প্রথম বীর্যপাতের অভিজ্ঞতা ঘটে স্বপ্নদোষ হিসেবে। তবে অনেকেই প্রথম বীর্যপাত ঘটায় হস্তমৈথুনের মাধ্যমে।

স্বাভাবিকভাবে বীর্যপাতের পরে পুরুষাঙ্গ